আর থাকতে হবেনা ব্যাচেলর আসছে রোবট ‘বউ’

Spread the love

রোবট ‘বউ’ । চীন যে দেশের সম্পর্কে যানেনা বা শুনেনি এমন মানুষের সংখ্যা খুব কম । আমরা কি জানি চীনে নারীর তুলনায় পূরুষের সংখ্যা অনেক বেশী ।আর সে জন্য চীন দেশের মানুষ বা সাইনটিস্টরা এবং গবেষকরা তৈরী করেছেন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন (আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্স বা এআই) রোবটিক ‘বউ’।

চীনের একটি সংবাদ মাধ্যম “সহুর ” দাবি করেছেন ,আসছে আগামী ভবিষ্যৎ কালে মানুষ আর আসল কোনো মানুষকে বিয়ে করতে হবেনা । একটি রোবট তার সব চাহিদা মেটাতে সক্ষম হবে । তবে এখনো এই রোবট টি যে কোম্পানি আবিস্কার করেছন বা তৈরী করেছেন তাদের নাম এখনো জানানো হয়নি ।

কি আছে এই রোবট এ কেনো আর কোনো আসল মানুুষকে বিয়ে করতে হবেনা এই রোবট এর জন্য । আসলেই কি আসল মানুষকে বিয়ে না করে এই রোবট নিয়ে থাকা সম্ভব চলুন আজকে আমরা জানতে চেষ্টা করবো এই রোবটের বিষেশত্ব এই রোবটে আসলে আছেটা কি ।

চীন গবেষকরা জানিয়েছেন

তাদের তৈরী এই রোবটের মুখমন্ডল হবে সত্যিকার নারীদের মতো ।

এমনি আরো জানিয়েছেন রোবট এর শরীরের ত্বক এর তাপমাত্রাটাও হবে একজন স্বাভাবিক নারীদের মতোই ।

তবে এই রোবট বা “এ আই ওয়াইফ” শুধুমাত্র সে’ক্স রোবট হলেও সে করতে পারবে ঘরের নিত্য প্রয়োজনীয় সকল কাজ কর্ম ।

এমনকি এই রোবট মানুষের মতো কর্মক্ষম এবং একজন স্বাভাবিক মানুষ যেভাবে মানুষের মতো কথা বলে সে এই ভাবেই কথা বলবে

ঘরের আরো বাইরের লোকদের সাথে ।

তারা আরো জানিয়েছেন এই রোবট তারা তৈরী করবে ক্রেতা মানে যারা কিনবে তাদের চাহিদা অনুযায়ী আসল কথা হলো যে যেমনটা চাইবে তারা তেমনটাই বানিয়ে দিবে একজন কাস্টমারকে ।

এই রোবটটি যেই সেই রোবট নয় । এই রোবটটি যারা কিনবে তাদের গুনতে হবে প্রায় তিন হাজার মার্কিন ডলার বা

আমরা বাংলাদেশী টাকায় যদি হিসাব করি তবে তার দাম হবে আড়াই লক্ষ টাকা ।

এ কথা শুনার পর আপনার মন কি চাইবে আপনি বিয়ে করবেন নাকি একটা রোবট কিনবেন পুরোটা আপনার ব্যাপার ।

লি ইউয়ানহুয়া ‘বেইজিং শহরে অবস্থিত ক্যাপিটাল নরমাল ইউনিভার্সিটির প্রাক্তন অধ্যাপক ‘

জানিয়েছেন যে চীনে নারীর তুলনায় পূরুষের সংখ্যা বেশী হওয়ার একমাত্র কারন হলো একসন্তান নিতী প্রথা । মানে এক সন্তানের বেশী তারা নেয়না ।

বর্তমানে চীন দেশে প্রতি ১০০ টা নারীর জন্য রয়েছে ১০৪.৬৫ জন পূরুষ ।

এটাই একমাত্র কারণ যার জন্য বর্তমানে প্রায় ৬০ লক্ষ অবিবাহিত পূরুষ বিয়ে করার জন্য বউ খুজে পাচ্ছেনা ।

কি ভাবলেন এমনটা হলে কেমন হতো আমাদের দেশে । না আমাদের দেশে ইনশাআল্লাহ এমনটা কখনো হবেনা ।

দেশটির অবিবাহিত পুরুষদের বিয়ে করার জন্য কোনো মেয়ে খুঁজে না পাওয়ার কারনে এ বিষয়ে চাইনিজ একাডেমি

অব সোশ্যাল সায়েন্সেস এর বিষেশজ্ঞরা জানায়, ‘২০২০ সাল নাগাদ চীনে ২৪ মিলিয়ন সিঙ্গেল পুরুষ থাকবে যারা কিউ বিয়ের জন্য মেয়ে খুজে পাবেনা,

আর যে ছেলেরা বিয়ে করার জন্য কোনো মেয়ে খুজে পাবেনা সেই ছেলেদের কথা চিন্তা করেই তারা এই রোবট ‘বউ বানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ।

আর কি ভাবছেন এই ব্যাপারটা নিয়ে কেউ কিছু বলবেনা ? আরে ভাই শুরু হয়েছে সমালোচনার ঝর এই রোবটকে নিয়ে ।

যে এই রোবট তৈরীর পেছনে নাকি রয়েছে চীনা সরকারের অসাধূ কোনো উদ্দেশ্য ।

ঘরের কাজ করবে রোবট সেই সাথে নিত্য প্রয়োজনীয় চাহিদা

মেটাতে সক্ষম যে রোবট সেটা তৈরীর পেছনে কি এমন উদ্দেশ্য থাকতে পারে ।

আপনার কি ধারনা এ রোবট ‘বউ’ যদি তৈরী হয় তাহলে কি আসলেই চীনা

পোলাপান বা ব্যাচলর পূরুষদের সমস্যার সমাধান হবে ।

এটা কি আসল মানুষের চাহিদা সম্পন্ন করতে পারবে আসলেই ?এ নিয়ে আপনার মন্তব্য কি আমাদের জানান ।

এই বিষয়টা নিয়ে চীনা পর্যবেক্ষকরা ‘ গু হে ‘ নিজের মতামত অবিহিত করে বলেন, ‘এই রোবট একজন মানুষের ঘরের ভেতরের  কথোপকথন ,

ছবি, ভিডিও, রেকর্ড করতে পারবে এবং একজন গুপ্তচরের কাজ সে করতে পারবে অনায়াসে’ কি দারুন আবিস্কার।

আবার এ বিষয়টা নিয়ে অনেকের আশঙ্কা করছেন যে,

এমন রোবট যদি বানানো হয় তাহলে তা মানব জাতির জন্য বিলুপ্তির

কারণও হয়ে উঠতে পারে রোবট ‘বউ’ তথা মানুষ আরো কমে যেতে পারে।

আসলেই একটা জিনিসের ভালো দিকটা যেমন আছে তেমনি খারাপ দিকও আছে ।

একদিকে যেমন সমস্যার সমাধান হবে আবার আরেকদিকে সমস্যার সৃষ্টি ।

Leave a Comment